ঢাকা ০৮:২৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বাংলাবাজার-শিমুলিয়া রুট ফেরি কম, চাপ বেশি

  • Golam Faruk
  • প্রকাশিত: ০৯:৪১:১৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১২ অগাস্ট ২০২১
  • 29

লকডাউনের ১৯ দিন পর বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌপথে আসন সংখ্যার সমপরিমাণ যাত্রী নিয়ে লঞ্চ চলাচল শুরু হয়েছে। তবে ফেরিতে হালকা যানবাহন নিয়ে পদ্মা নদী পার হতে বিআইডব্লিউটিএ থেকে বলা হয়েছে। ফেরি চলছে মাত্র ছয়টি। তবে কয়েকদিনে দুই ঘাটে প্রায় চার শতাধিক ট্রাক আটকে আছে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে গত ১ থেকে ৭ জুলাই কঠোর বিধি-নিষেধ আরোপ করে সরকার। পরে তা ১৪ জুলাই পর্যন্ত বাড়ানো হয়। ঈদুল আজহার কারণে ১৫ থেকে ২২ জুলাই পর্যন্ত বিধি-নিষেধ শিথিল করা হয়।

২৩ জুলাই থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত ‘কঠোরতম বিধিনিষেধ’ জারি করে সরকার। পরে আরেক দফা বাড়িয়ে ১০ আগস্ট পর্যন্ত করা হয়। তাই দীর্ঘদিন পর দূরপাল্লার গণপরিবহন চলছে সড়কে। এতে ঢাকামুখী যাত্রীদের চাপ। বুধবার (১১ আগস্ট) সকাল থেকে বাংলাবাজার ঘাটে ঢাকামুখী যাত্রীদের ভিড় বাড়তে থাকে। লঞ্চে নির্দিষ্ট ভাড়ায় যাত্রী পারাপার হচ্ছে। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে এবং ধারণ ক্ষমতার সমপরিমাণ যাত্রী নিয়ে নৌযান চলাচল করার আর্দেশ রয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত প্রত্যেক যাত্রীসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে মাস্ক পরিধান এবং স্বাস্থ্য অধিপ্তরের দেওয়া সকল স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার কথাও বলা হয়েছে।

এদিকে পদ্মায় অস্বাভাবিক পানি বৃদ্ধির ফলে তীব্র স্রোত অব্যাহত থাকায় ফেরি চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। শিমুলিয়া থেকে ফেরিগুলো প্রায় পাঁচ কিলোমিটার পথ ঘুরে আসায় পারাপারে প্রায় দ্বিগুণ সময় লাগছে।বিআইডব্লিউটিএ বাংলাবাজার ঘাট পরিদর্শক আক্তার হোসেন বলেন, সকাল থেকে এ রুটের সকল লঞ্চ চলাচল শুরু হয়েছে। সরকার নির্ধারিত আগের ভাড়ায় যাত্রীরা পারাপার হচ্ছে। আমরা যাত্রীদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে লঞ্চে যাত্রী বহনের অনুরোধ করছি।

বিআইডব্লিউটিসি বাংলাবাজার ঘাট সহকারী ম্যানেজার ভজন কুমার সাহা বলেন, পদ্মায় তীব্র স্রোত অব্যাহত থাকায় ফেরি চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। আজ পাঁটি কেটাইপ ও একটি ছোট ফেরি চলাচল করছে। আজ থেকে লঞ্চ চলাচল করায় আমাদের ধারনা ছিল ফেরিতে যাত্রী চাপ কমবে। কিন্তু না ফেরিতে সকাল থেকেই যাত্রীদের চাপ রয়েছে। আমরা যাত্রী, অ্যাম্বুলেন্সসহ জরুরি গাড়ি অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পারাপার করছি। কিছু পণ্যবাহী ট্রাক আটকে রয়েছে।

বিষয় :
প্রতিবেদক সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য

Golam Faruk

জনপ্রিয়

বাংলাবাজার-শিমুলিয়া রুট ফেরি কম, চাপ বেশি

প্রকাশিত: ০৯:৪১:১৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১২ অগাস্ট ২০২১

লকডাউনের ১৯ দিন পর বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌপথে আসন সংখ্যার সমপরিমাণ যাত্রী নিয়ে লঞ্চ চলাচল শুরু হয়েছে। তবে ফেরিতে হালকা যানবাহন নিয়ে পদ্মা নদী পার হতে বিআইডব্লিউটিএ থেকে বলা হয়েছে। ফেরি চলছে মাত্র ছয়টি। তবে কয়েকদিনে দুই ঘাটে প্রায় চার শতাধিক ট্রাক আটকে আছে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে গত ১ থেকে ৭ জুলাই কঠোর বিধি-নিষেধ আরোপ করে সরকার। পরে তা ১৪ জুলাই পর্যন্ত বাড়ানো হয়। ঈদুল আজহার কারণে ১৫ থেকে ২২ জুলাই পর্যন্ত বিধি-নিষেধ শিথিল করা হয়।

২৩ জুলাই থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত ‘কঠোরতম বিধিনিষেধ’ জারি করে সরকার। পরে আরেক দফা বাড়িয়ে ১০ আগস্ট পর্যন্ত করা হয়। তাই দীর্ঘদিন পর দূরপাল্লার গণপরিবহন চলছে সড়কে। এতে ঢাকামুখী যাত্রীদের চাপ। বুধবার (১১ আগস্ট) সকাল থেকে বাংলাবাজার ঘাটে ঢাকামুখী যাত্রীদের ভিড় বাড়তে থাকে। লঞ্চে নির্দিষ্ট ভাড়ায় যাত্রী পারাপার হচ্ছে। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে এবং ধারণ ক্ষমতার সমপরিমাণ যাত্রী নিয়ে নৌযান চলাচল করার আর্দেশ রয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত প্রত্যেক যাত্রীসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে মাস্ক পরিধান এবং স্বাস্থ্য অধিপ্তরের দেওয়া সকল স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার কথাও বলা হয়েছে।

এদিকে পদ্মায় অস্বাভাবিক পানি বৃদ্ধির ফলে তীব্র স্রোত অব্যাহত থাকায় ফেরি চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। শিমুলিয়া থেকে ফেরিগুলো প্রায় পাঁচ কিলোমিটার পথ ঘুরে আসায় পারাপারে প্রায় দ্বিগুণ সময় লাগছে।বিআইডব্লিউটিএ বাংলাবাজার ঘাট পরিদর্শক আক্তার হোসেন বলেন, সকাল থেকে এ রুটের সকল লঞ্চ চলাচল শুরু হয়েছে। সরকার নির্ধারিত আগের ভাড়ায় যাত্রীরা পারাপার হচ্ছে। আমরা যাত্রীদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে লঞ্চে যাত্রী বহনের অনুরোধ করছি।

বিআইডব্লিউটিসি বাংলাবাজার ঘাট সহকারী ম্যানেজার ভজন কুমার সাহা বলেন, পদ্মায় তীব্র স্রোত অব্যাহত থাকায় ফেরি চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। আজ পাঁটি কেটাইপ ও একটি ছোট ফেরি চলাচল করছে। আজ থেকে লঞ্চ চলাচল করায় আমাদের ধারনা ছিল ফেরিতে যাত্রী চাপ কমবে। কিন্তু না ফেরিতে সকাল থেকেই যাত্রীদের চাপ রয়েছে। আমরা যাত্রী, অ্যাম্বুলেন্সসহ জরুরি গাড়ি অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পারাপার করছি। কিছু পণ্যবাহী ট্রাক আটকে রয়েছে।