ঢাকা ০৭:২৫ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ৭ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

করোনায় সর্বোচ্চ শনাক্ত যুক্তরাষ্ট্রে, মৃত্যু ইন্দোনেশিয়ায়

  • Golam Faruk
  • প্রকাশিত: ০৯:৩২:১২ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৪ অগাস্ট ২০২১
  • 33

বিশ্বজুড়ে তাণ্ডব চালিয়েই যাচ্ছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। প্রাণঘাতী রোগ করোনায় শুক্রবার বিশ্বের দেশসমূহের মধ্যে সর্বোচ্চ সংখ্যক নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে এবং এ রোগে এই দিন মৃত্যুতে শীর্ষে ছিল ইন্দোনেশিয়া। ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে করোনা থেকে সুস্থ হয়ে ওঠা মানুষের সংখ্যাও কমেছে। বিশ্বজুড়ে করোনা মহামারি শুরু হওয়ার পর থেকে এ রোগে প্রতিদিন আক্রান্ত, মৃত্যু ও সুস্থতার হিসাব রাখা ওয়েবাসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটার্সের তথ্য অনুযায়ী, শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৫৫ হাজার ২৯৭ জন এবং এ রোগে এই দিন দেশটিতে মারা গেছেন ৭৬৯ জন।

অন্যদিকে, করোনার এশীয় উপকেন্দ্র (এপিসেন্টার) হিসেবে পরিচিতি পাওয়া দেশ ইন্দোনেশিয়ায় শুক্রবার করোনায় মারা গেছেন ১ হাজার ৪৩২ জন এবং করোনা পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন ৩০ হাজার ৭৭৮ জন।

ওয়ার্ল্ডোমিটার্সের তথ্য অনুযায়ী, শুক্রবার বিশ্বজুড়ে করোনা পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন ৭ লাখ ১৯ হাজার ১৪২ জন এবং এ রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১০ হাজার ৬৫ জন। এছাড়া, এই দিন বিশ্বে করোনা থেকে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৪ লাখ ৯৭ হাজার ৬৩৮ জন মানুষ। আগের দিন শুক্রবার সুস্থ হয়ে ওঠা ব্যক্তিদের সংখ্যা ছিল ৫ লাখ ৫৬ হাজার ৪৩৬।

যুক্তরাষ্ট্র ও ইন্দোনেশিয়া ছাড়া বিশ্বের অন্যান্য যেসব দেশে করোনায় দৈনিক সংক্রমণ-মৃত্যুর উচ্চহার লক্ষ্য করা গেছে, সে দেশসমূহ হলো – ইরান (নতুন আক্রান্ত ৩৯ হাজার ১১৯, মৃত্যু ৫২৭), ভারত (নতুন আক্রান্ত ৩৮ হাজার ৭১৩, মৃত্যু ৪৭৪), যুক্তরাজ্য (নতুন আক্রান্ত ৩২ হাজার ৭০০, মৃত্যু ১০০), মেক্সিকো (নতুন আক্রান্ত ২৪ হাজার ৯৭৫, মৃত্যু ৬০৮), তুরস্ক (নতুন আক্রান্ত ২১ হাজার ৩৭২, মৃত্যু ১৫৭), রাশিয়া (নতুন আক্রান্ত ২২ হাজার ২৭৭, মৃত্যু ৮১৫), থাইল্যান্ড (নতুন আক্রান্ত ২৩ হাজার ৪১৮, মৃত্যু ১৮৪), মালয়েশিয়া (নতুন আক্রান্ত ২১ হাজার ৪৬৮, মৃত্যু ২৭৭) এবং জাপান (নতুন আক্রান্ত ১৮ হাজার ৯০৮, মৃত্যু ২৭)।

বিশ্বজুড়ে বর্তমানে সক্রিয় করোনা রোগী আছেন ১ কোটি ৭০ লাখ ৬ হাজার ১০ জন। তাদের মধ্যে মৃদু উপসর্গ বহন করছেন ১ কোটি ৬৯ লাখ ১২ হাজার ৬৬৪ জন এবং গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় আছেন ১ লাখ ৩ হাজার ৩৪৩ জন। ওয়ার্ল্ডোমিটার্সের পরিসংখ্যান বলছে, মহামারি শুরুর পর থেকে এ পর্যন্ত বিশ্বজুড়ে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন মোট ২০ কোটি ৬৯ লাখ ৮ হাজার ২২০ জন এবং মারা গেছেন মোট ৪৩ লাখ ৫৭ হাজার ৩৩৭ জন।

এছাড়া, মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর সুস্থ হয়ে উঠেছেন মোট ১৮ কোটি ৫৫ লাখ ৩৪ হাজার ৮৭৩ জন। ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে বিশ্বের প্রথম করোনায় আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। করোনায় প্রথম মৃত্যুর ঘটনাও ঘটেছিল চীনে। তারপর অত্যন্ত দ্রুতগতিতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে প্রাণঘাতী এই ভাইরাসটি। পরিস্থিতি সামাল দিতে ২০২০ সালের ২০ জানুয়ারি বিশ্বজুড়ে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। কিন্তু তাতেও এই এ রোগের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে না আসায় অবশেষে ওই বছর ১১ মার্চ করোনাকে বৈশ্বিক মহামারি ঘোষণা করে ডব্লিউএইচও।

বিষয় :
প্রতিবেদক সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য

Golam Faruk

জনপ্রিয়

করোনায় সর্বোচ্চ শনাক্ত যুক্তরাষ্ট্রে, মৃত্যু ইন্দোনেশিয়ায়

প্রকাশিত: ০৯:৩২:১২ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৪ অগাস্ট ২০২১

বিশ্বজুড়ে তাণ্ডব চালিয়েই যাচ্ছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। প্রাণঘাতী রোগ করোনায় শুক্রবার বিশ্বের দেশসমূহের মধ্যে সর্বোচ্চ সংখ্যক নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে এবং এ রোগে এই দিন মৃত্যুতে শীর্ষে ছিল ইন্দোনেশিয়া। ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে করোনা থেকে সুস্থ হয়ে ওঠা মানুষের সংখ্যাও কমেছে। বিশ্বজুড়ে করোনা মহামারি শুরু হওয়ার পর থেকে এ রোগে প্রতিদিন আক্রান্ত, মৃত্যু ও সুস্থতার হিসাব রাখা ওয়েবাসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটার্সের তথ্য অনুযায়ী, শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৫৫ হাজার ২৯৭ জন এবং এ রোগে এই দিন দেশটিতে মারা গেছেন ৭৬৯ জন।

অন্যদিকে, করোনার এশীয় উপকেন্দ্র (এপিসেন্টার) হিসেবে পরিচিতি পাওয়া দেশ ইন্দোনেশিয়ায় শুক্রবার করোনায় মারা গেছেন ১ হাজার ৪৩২ জন এবং করোনা পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন ৩০ হাজার ৭৭৮ জন।

ওয়ার্ল্ডোমিটার্সের তথ্য অনুযায়ী, শুক্রবার বিশ্বজুড়ে করোনা পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন ৭ লাখ ১৯ হাজার ১৪২ জন এবং এ রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১০ হাজার ৬৫ জন। এছাড়া, এই দিন বিশ্বে করোনা থেকে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৪ লাখ ৯৭ হাজার ৬৩৮ জন মানুষ। আগের দিন শুক্রবার সুস্থ হয়ে ওঠা ব্যক্তিদের সংখ্যা ছিল ৫ লাখ ৫৬ হাজার ৪৩৬।

যুক্তরাষ্ট্র ও ইন্দোনেশিয়া ছাড়া বিশ্বের অন্যান্য যেসব দেশে করোনায় দৈনিক সংক্রমণ-মৃত্যুর উচ্চহার লক্ষ্য করা গেছে, সে দেশসমূহ হলো – ইরান (নতুন আক্রান্ত ৩৯ হাজার ১১৯, মৃত্যু ৫২৭), ভারত (নতুন আক্রান্ত ৩৮ হাজার ৭১৩, মৃত্যু ৪৭৪), যুক্তরাজ্য (নতুন আক্রান্ত ৩২ হাজার ৭০০, মৃত্যু ১০০), মেক্সিকো (নতুন আক্রান্ত ২৪ হাজার ৯৭৫, মৃত্যু ৬০৮), তুরস্ক (নতুন আক্রান্ত ২১ হাজার ৩৭২, মৃত্যু ১৫৭), রাশিয়া (নতুন আক্রান্ত ২২ হাজার ২৭৭, মৃত্যু ৮১৫), থাইল্যান্ড (নতুন আক্রান্ত ২৩ হাজার ৪১৮, মৃত্যু ১৮৪), মালয়েশিয়া (নতুন আক্রান্ত ২১ হাজার ৪৬৮, মৃত্যু ২৭৭) এবং জাপান (নতুন আক্রান্ত ১৮ হাজার ৯০৮, মৃত্যু ২৭)।

বিশ্বজুড়ে বর্তমানে সক্রিয় করোনা রোগী আছেন ১ কোটি ৭০ লাখ ৬ হাজার ১০ জন। তাদের মধ্যে মৃদু উপসর্গ বহন করছেন ১ কোটি ৬৯ লাখ ১২ হাজার ৬৬৪ জন এবং গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় আছেন ১ লাখ ৩ হাজার ৩৪৩ জন। ওয়ার্ল্ডোমিটার্সের পরিসংখ্যান বলছে, মহামারি শুরুর পর থেকে এ পর্যন্ত বিশ্বজুড়ে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন মোট ২০ কোটি ৬৯ লাখ ৮ হাজার ২২০ জন এবং মারা গেছেন মোট ৪৩ লাখ ৫৭ হাজার ৩৩৭ জন।

এছাড়া, মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর সুস্থ হয়ে উঠেছেন মোট ১৮ কোটি ৫৫ লাখ ৩৪ হাজার ৮৭৩ জন। ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে বিশ্বের প্রথম করোনায় আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। করোনায় প্রথম মৃত্যুর ঘটনাও ঘটেছিল চীনে। তারপর অত্যন্ত দ্রুতগতিতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে প্রাণঘাতী এই ভাইরাসটি। পরিস্থিতি সামাল দিতে ২০২০ সালের ২০ জানুয়ারি বিশ্বজুড়ে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। কিন্তু তাতেও এই এ রোগের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে না আসায় অবশেষে ওই বছর ১১ মার্চ করোনাকে বৈশ্বিক মহামারি ঘোষণা করে ডব্লিউএইচও।