ঢাকা ১১:২৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বরিশালের স্থানীয় প্রশাসনের রদবদল হতে পারে!

  • Golam Faruk
  • প্রকাশিত: ১২:২৪:৩০ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৩ অগাস্ট ২০২১
  • 26

বরিশালের নগরীর নির্বাহী কর্মকর্তার বাসভবনে হামলার ঘটনায় দায়ের করা মামলা ও মেয়রের পক্ষ থেকে পাল্টামামলা প্রত্যাহার করে বিরোধের অবসান ঘটলেও রদবদলের বিষয়ে ভাবা হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে ইউএনও এবং ওসিকে অন্যত্র বদলি করা হতে পারে। স্থানীয় একটি সূত্র এমনটিই ধারণা দিচ্ছে। রবিবার রাতের সমঝোতা বৈঠকে ওই দুই কর্মকর্তাকে রাখা হয়নি। বরং সমঝোতার স্বার্থে তাদের দূরে রাখা হয়।

রাতে সদরের ইউএনও মো. মুনিবুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমরা বৈঠকে ছিলাম না। ওখানে কী আলোচনা হয়েছে আমি জানি না। সমঝোতার কোনো বিষয় থাকতে পারে জানিয়ে তিনি বলেন, আমরা মাঠ প্রশাসনে কাজ করি। নিজেদের কোনো স্বার্থ নেই এখানে। সমঝোতা বৈঠকে ওসিকেও রাখা হয়নি বলে জানান তিনি।

অপর একটি সূত্র জানায়, দুই পক্ষের মামলা প্রত্যাহার হলে ইউএনও এবং ওসির বদলির বিষয়টি সামনে আসতে পারে। দলের নেতারাও ওই দুই কর্মকর্তাকে দুষছেন। বিশেষ করে ইউএনওর বাসভবনে হামলায় নিজেদের নির্দোষ দাবি করার চেষ্টা করছেন। যদিও দলের নেতাদের কারণে স্থানীয় প্রশাসনে কাজ করা অনেক কঠিন বলে মনে করছেন দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা। তারা বলেন, সামনেরটা সবাই দেখে। পেছনে রক্তক্ষরণ কেউ দেখে না। অনেক কিছু মুখ বুঝে সহ্য করে কাজ করতে হয়।

বিষয় :
প্রতিবেদক সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য

Golam Faruk

জনপ্রিয়

বরিশালের স্থানীয় প্রশাসনের রদবদল হতে পারে!

প্রকাশিত: ১২:২৪:৩০ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৩ অগাস্ট ২০২১

বরিশালের নগরীর নির্বাহী কর্মকর্তার বাসভবনে হামলার ঘটনায় দায়ের করা মামলা ও মেয়রের পক্ষ থেকে পাল্টামামলা প্রত্যাহার করে বিরোধের অবসান ঘটলেও রদবদলের বিষয়ে ভাবা হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে ইউএনও এবং ওসিকে অন্যত্র বদলি করা হতে পারে। স্থানীয় একটি সূত্র এমনটিই ধারণা দিচ্ছে। রবিবার রাতের সমঝোতা বৈঠকে ওই দুই কর্মকর্তাকে রাখা হয়নি। বরং সমঝোতার স্বার্থে তাদের দূরে রাখা হয়।

রাতে সদরের ইউএনও মো. মুনিবুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমরা বৈঠকে ছিলাম না। ওখানে কী আলোচনা হয়েছে আমি জানি না। সমঝোতার কোনো বিষয় থাকতে পারে জানিয়ে তিনি বলেন, আমরা মাঠ প্রশাসনে কাজ করি। নিজেদের কোনো স্বার্থ নেই এখানে। সমঝোতা বৈঠকে ওসিকেও রাখা হয়নি বলে জানান তিনি।

অপর একটি সূত্র জানায়, দুই পক্ষের মামলা প্রত্যাহার হলে ইউএনও এবং ওসির বদলির বিষয়টি সামনে আসতে পারে। দলের নেতারাও ওই দুই কর্মকর্তাকে দুষছেন। বিশেষ করে ইউএনওর বাসভবনে হামলায় নিজেদের নির্দোষ দাবি করার চেষ্টা করছেন। যদিও দলের নেতাদের কারণে স্থানীয় প্রশাসনে কাজ করা অনেক কঠিন বলে মনে করছেন দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা। তারা বলেন, সামনেরটা সবাই দেখে। পেছনে রক্তক্ষরণ কেউ দেখে না। অনেক কিছু মুখ বুঝে সহ্য করে কাজ করতে হয়।