ঢাকা ০৯:২৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

জুমার পরই আফগানিস্তানে তালেবান সরকার

  • Golam Faruk
  • প্রকাশিত: ১০:৪১:৩৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৩ সেপ্টেম্বর ২০২১
  • 51

জুমার পরই আফগানিস্তানে তালেবান সরকার, আরটিভি

দুই সপ্তাহের বেশি সময় আগে আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুল দখল করে নেয় তালেবান। কিন্তু এখনও কোনও সরকার গঠন করেনি তারা। এমতাবস্থায় আজ শুক্রবারই সরকার গঠন করতে পারে তারা। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের চাপের মুখে অনেকটা সহনশীল সরকার গঠন করতে চাইছে তালেবান। খবর আল জাজিরার।

তালেবানের দুটি সূত্র বার্তা সংস্থা এএফপিকে জানিয়েছে, জুমার নামাজের পরই নতুন প্রশাসন ঘোষণা করা হবে। প্রায় দুই দশকের যুদ্ধের সমাপ্তি ঘটিয়ে গত সোমবার আফগানিস্তান ছেড়ে যায় মার্কিন বাহিনী। এরপরই মূলত সরকার গঠনে তোড়জোড় শুরু করে তালেবান।

পশ্চিমা বিভিন্ন দেশ ইতোমধ্যেই জানিয়েছে, তারা বিভিন্ন ইস্যুতে তালেবানের সঙ্গে কাজ করবে। তবে আফগানিস্তানের নতুন প্রশাসনকে স্বীকৃতি দেবে না বলে জানিয়েছে। যদিও চীন ইতোমধ্যেই জানিয়েছে, তারা আফগানিস্তানের সঙ্গে সহযোগিতা এবং বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখতে চায়।

এদিকে তালেবানের একজন মুখপাত্র শুক্রবার দিনের শুরুর দিকে জানিয়েছেন, কাবুলে নিজেদের দূতাবাস খোলা রাখার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। পাশাপাশি আফগানিস্তানের সঙ্গে সম্পর্ক ‘জোরদার’ এবং মানবিক সহায়তা বৃদ্ধিরও ঘোষণা দিয়েছে দেশটি।

তালেবান মুখপাত্র সুহেইল শাহীন বলেছেন, কাতারে দোহায় তাদের রাজনৈতিক অফিসের সিনিয়র একজন কর্মকর্তা আব্দুল সালাম হানাফি চীনের উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী উ জিয়াঘাওয়ের সঙ্গে ফোনালাপ করেছেন। চীনের উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন যে, তারা কাবুলে তাদের দূতাবাস খোলা রাখবে।

অতীতের তুলনায় সম্পর্ক আরও জোরদারের ব্যাপারেও জানান তিনি। এই অঞ্চলের নিরাপত্তা ও উন্নয়নে আফগানিস্তান গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে বলেও জানান জিয়াঘাও। পরে চীন এক বিবৃতিতে আফগানিস্তানের সঙ্গে তাদের সম্পর্কের বিষয়টি ‘নিশ্চিত’ করে জানিয়েছে, তারা আফগানদের জন্য শুভ কামনা করছে এবং দেশটি গঠনে ভূমিকা রাখতে চায় বেইজিং।

বিষয় :
প্রতিবেদক সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য

Golam Faruk

জনপ্রিয়

জুমার পরই আফগানিস্তানে তালেবান সরকার

প্রকাশিত: ১০:৪১:৩৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৩ সেপ্টেম্বর ২০২১

দুই সপ্তাহের বেশি সময় আগে আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুল দখল করে নেয় তালেবান। কিন্তু এখনও কোনও সরকার গঠন করেনি তারা। এমতাবস্থায় আজ শুক্রবারই সরকার গঠন করতে পারে তারা। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের চাপের মুখে অনেকটা সহনশীল সরকার গঠন করতে চাইছে তালেবান। খবর আল জাজিরার।

তালেবানের দুটি সূত্র বার্তা সংস্থা এএফপিকে জানিয়েছে, জুমার নামাজের পরই নতুন প্রশাসন ঘোষণা করা হবে। প্রায় দুই দশকের যুদ্ধের সমাপ্তি ঘটিয়ে গত সোমবার আফগানিস্তান ছেড়ে যায় মার্কিন বাহিনী। এরপরই মূলত সরকার গঠনে তোড়জোড় শুরু করে তালেবান।

পশ্চিমা বিভিন্ন দেশ ইতোমধ্যেই জানিয়েছে, তারা বিভিন্ন ইস্যুতে তালেবানের সঙ্গে কাজ করবে। তবে আফগানিস্তানের নতুন প্রশাসনকে স্বীকৃতি দেবে না বলে জানিয়েছে। যদিও চীন ইতোমধ্যেই জানিয়েছে, তারা আফগানিস্তানের সঙ্গে সহযোগিতা এবং বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখতে চায়।

এদিকে তালেবানের একজন মুখপাত্র শুক্রবার দিনের শুরুর দিকে জানিয়েছেন, কাবুলে নিজেদের দূতাবাস খোলা রাখার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। পাশাপাশি আফগানিস্তানের সঙ্গে সম্পর্ক ‘জোরদার’ এবং মানবিক সহায়তা বৃদ্ধিরও ঘোষণা দিয়েছে দেশটি।

তালেবান মুখপাত্র সুহেইল শাহীন বলেছেন, কাতারে দোহায় তাদের রাজনৈতিক অফিসের সিনিয়র একজন কর্মকর্তা আব্দুল সালাম হানাফি চীনের উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী উ জিয়াঘাওয়ের সঙ্গে ফোনালাপ করেছেন। চীনের উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন যে, তারা কাবুলে তাদের দূতাবাস খোলা রাখবে।

অতীতের তুলনায় সম্পর্ক আরও জোরদারের ব্যাপারেও জানান তিনি। এই অঞ্চলের নিরাপত্তা ও উন্নয়নে আফগানিস্তান গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে বলেও জানান জিয়াঘাও। পরে চীন এক বিবৃতিতে আফগানিস্তানের সঙ্গে তাদের সম্পর্কের বিষয়টি ‘নিশ্চিত’ করে জানিয়েছে, তারা আফগানদের জন্য শুভ কামনা করছে এবং দেশটি গঠনে ভূমিকা রাখতে চায় বেইজিং।