ঢাকা ০৭:৩০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

এ অঞ্চলে জনসাধারণের চলাচল সহজতর করতে যৌথ প্রচেষ্টার জন্য তথ্যমন্ত্রীর আহ্বান

  • Golam Faruk
  • প্রকাশিত: ০৮:৫২:১৪ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৮ সেপ্টেম্বর ২০২১
  • 43

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ আজ এ অঞ্চলের জনগণের কল্যাণের লক্ষ্যে তাদের চলাচল সহজতর করতে সাহায্য করার জন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে একসাথে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘বাস্তবতা হচ্ছে যে, এ অঞ্চলে সংহতি রয়েছে। দীর্ঘকাল ধরে এখানে জনগণের মধ্যে একটি সাংস্কৃতিক বন্ধন ও সম্পৃক্ততা রয়েছে। তিনি বর্তমান ইউরোপের উদাহরণ তুলে ধরে বলেন, সেখানে যে কেউ এক দেশ থেকে অন্য দেশে অবাধে যাতায়াত করতে পারে।’ আজ দুপুরে নয়াদিল্লীতে বাংলাদেশ মিশনে ভারতীয় মিডিয়ার সাথে আলাপচারিতাকালে তিনি বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে পর্যটন থেকে চিকিৎসাসহ বিভিন্ন উদ্দেশ্যে জনগণের চলাচল অনেকগুণ বেড়ে যাওয়ার প্রেক্ষিতে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে জনগণের চলাচল আরো সহজতর করতে হবে।

বিভিন্ন বিদেশী ও স্থানীয় মিডিয়ায় কর্মরত সাংবাদিকরা অনুষ্ঠানে যোগদান করেন। পরে তারা মধ্যাহ্নভোজে শরিক হন। উদাহরণ দিয়ে মন্ত্রী বলেন, (বাংলাদেশ থেকে) যখন একজন শিল্পী ভারত সফর করতে চান, তখন তাকে শুল্ক বিভাগ, সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ছাড়পত্র পেতে হয়। তিনি বলেন, “আমাদের যোগাযোগ ব্যবস্থা রয়েছে … আমাদের আছে সড়ক যোগাযোগ, নদী সংযোগ, রেল সংযোগ, বিমান যোগাযোগ, … এখন আমাদেরকে জনগণের চলাচল আরো সহজতর করতে হবে।’ তিনি বিশেষ করে সাংবাদিক সমাজকে এ বিষয়ে জনমত গড়ে তোলার আহ্বান জানান।

ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর এবং তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুরের সাথে বৈঠকের উল্লেখ করে তিনি বলেন, তারা যোগাযোগ, সাংস্কৃতিক সহযোগিতা, করোনা সমস্যা এবং ভ্যাকসিন সহযোগিতার বিষয়সহ দ্বিপক্ষীয় বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছেন। ভারতে বাংলাদেশের হাইকমিশনার মুহাম্মদ ইমরান অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন। পরে, তথ্যমন্ত্রী এখানে ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ ওয়ার্ল্ড অ্যাফেয়ার্সে একটি বই প্রকাশনা অনুষ্ঠানে যোগ দেন। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ নিয়ে ‘বাংলাদেশ ওয়ার কমেন্টারী’ শিরোনামের বইটি লিখেছেন ইউ.এল বড়ুয়া। অনুষ্ঠানে বক্তৃতাকালে তথ্যমন্ত্রী ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় জীবন উৎসর্গকারী শহীদদের বিশেষ করে ভারতীয় সেনা সদস্যদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘ভারত ও তার জনগণের সাহায্য ছাড়া নয় মাসের যুদ্ধে বাংলাদেশকে পাকিস্তান থেকে মুক্ত করা কখনোই সম্ভব ছিল না।’

ভারতে বাংলাদেশের হাইকমিশনার মুহাম্মদ ইমরান, ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ ওয়ার্ল্ড অ্যাফেয়ার্সের (আইসিডব্লিউএ) মহাপরিচালক বিজয় ঠাকুর সিং এবং ইউএল বড়–য়ার ছেলে অমিত বড়ুয়া অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন। তথ্যমন্ত্রী বিকেলে দূরদর্শনে একটি সাক্ষাৎকার দেন।

বিষয় :
প্রতিবেদক সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য

Golam Faruk

জনপ্রিয়

এ অঞ্চলে জনসাধারণের চলাচল সহজতর করতে যৌথ প্রচেষ্টার জন্য তথ্যমন্ত্রীর আহ্বান

প্রকাশিত: ০৮:৫২:১৪ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ আজ এ অঞ্চলের জনগণের কল্যাণের লক্ষ্যে তাদের চলাচল সহজতর করতে সাহায্য করার জন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে একসাথে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘বাস্তবতা হচ্ছে যে, এ অঞ্চলে সংহতি রয়েছে। দীর্ঘকাল ধরে এখানে জনগণের মধ্যে একটি সাংস্কৃতিক বন্ধন ও সম্পৃক্ততা রয়েছে। তিনি বর্তমান ইউরোপের উদাহরণ তুলে ধরে বলেন, সেখানে যে কেউ এক দেশ থেকে অন্য দেশে অবাধে যাতায়াত করতে পারে।’ আজ দুপুরে নয়াদিল্লীতে বাংলাদেশ মিশনে ভারতীয় মিডিয়ার সাথে আলাপচারিতাকালে তিনি বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে পর্যটন থেকে চিকিৎসাসহ বিভিন্ন উদ্দেশ্যে জনগণের চলাচল অনেকগুণ বেড়ে যাওয়ার প্রেক্ষিতে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে জনগণের চলাচল আরো সহজতর করতে হবে।

বিভিন্ন বিদেশী ও স্থানীয় মিডিয়ায় কর্মরত সাংবাদিকরা অনুষ্ঠানে যোগদান করেন। পরে তারা মধ্যাহ্নভোজে শরিক হন। উদাহরণ দিয়ে মন্ত্রী বলেন, (বাংলাদেশ থেকে) যখন একজন শিল্পী ভারত সফর করতে চান, তখন তাকে শুল্ক বিভাগ, সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ছাড়পত্র পেতে হয়। তিনি বলেন, “আমাদের যোগাযোগ ব্যবস্থা রয়েছে … আমাদের আছে সড়ক যোগাযোগ, নদী সংযোগ, রেল সংযোগ, বিমান যোগাযোগ, … এখন আমাদেরকে জনগণের চলাচল আরো সহজতর করতে হবে।’ তিনি বিশেষ করে সাংবাদিক সমাজকে এ বিষয়ে জনমত গড়ে তোলার আহ্বান জানান।

ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর এবং তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুরের সাথে বৈঠকের উল্লেখ করে তিনি বলেন, তারা যোগাযোগ, সাংস্কৃতিক সহযোগিতা, করোনা সমস্যা এবং ভ্যাকসিন সহযোগিতার বিষয়সহ দ্বিপক্ষীয় বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছেন। ভারতে বাংলাদেশের হাইকমিশনার মুহাম্মদ ইমরান অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন। পরে, তথ্যমন্ত্রী এখানে ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ ওয়ার্ল্ড অ্যাফেয়ার্সে একটি বই প্রকাশনা অনুষ্ঠানে যোগ দেন। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ নিয়ে ‘বাংলাদেশ ওয়ার কমেন্টারী’ শিরোনামের বইটি লিখেছেন ইউ.এল বড়ুয়া। অনুষ্ঠানে বক্তৃতাকালে তথ্যমন্ত্রী ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় জীবন উৎসর্গকারী শহীদদের বিশেষ করে ভারতীয় সেনা সদস্যদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘ভারত ও তার জনগণের সাহায্য ছাড়া নয় মাসের যুদ্ধে বাংলাদেশকে পাকিস্তান থেকে মুক্ত করা কখনোই সম্ভব ছিল না।’

ভারতে বাংলাদেশের হাইকমিশনার মুহাম্মদ ইমরান, ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ ওয়ার্ল্ড অ্যাফেয়ার্সের (আইসিডব্লিউএ) মহাপরিচালক বিজয় ঠাকুর সিং এবং ইউএল বড়–য়ার ছেলে অমিত বড়ুয়া অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন। তথ্যমন্ত্রী বিকেলে দূরদর্শনে একটি সাক্ষাৎকার দেন।