ঢাকা ০৬:০৯ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিএনপির এমপিরা পদত্যাগ করবেন কবে?

বর্তমান সংসদে বিএনপির সাতজন সংসদ সদস্য রয়েছেন, তারা পদত্যাগ করবেন বলে জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি জানান, যেকোনো সময় তাদের পদত্যাগের ঘোষণা আসতে পারে।

শনিবার (২৯ অক্টোবর) বিকেলে রংপুরে বিভাগীয় সমাবেশে দেওয়া বক্তব্যে ফখরুল বলেন, ‘শেখ হাসিনার অধীনে কোনো নির্বাচন হবে না এবং নির্বাচন হতে হবে নির্দলীয় সরকারের অধীনে। ‍‍সরকারকে সংসদ থেকে অবশ্যই পদত্যাগ করতে হবে। আমাদের এমপিরা সংসদ থেকে পদত্যাগ করতে প্রস্তুত‍‍, এখন শুধু ঘোষণা বাকি।’

এর আগে গত ১১ অক্টোবর সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে বিএনপি মহাসচিব জানিয়েছিলেন, সরকারবিরোধী চলমান আন্দোলনে চূড়ান্ত রূপরেখা করতে যাচ্ছে বিএনপি। এই রূপরেখা চূড়ান্ত হলে বর্তমান একাদশ সংসদে দলের যে কয়জন সংসদ সদস্য আছেন তারা পদত্যাগ করতে পারেন।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, আগামী ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় মহাসমাবেশের আগে গুরুত্বপূর্ণ কিছু সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে বিএনপি। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো দলীয় সংসদ সদস্যদের জাতীয় সংসদ থেকে পদত্যাগ। ধারণা করা হচ্ছে, ১০ ডিসেম্বরের আগেই বিএনপির এমপিদের সংসদ থেকে পদত্যাগের ঘোষণা আসতে পারে।

বর্তমান সংসদে বিএনপির সাতজন এমপি আছেন। তারাও পদত্যাগে আগ্রহী বলে জানা গেছে। ইতোমধ্যে কয়েকজন এমপি দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের কাছে সংসদ থেকে পদত্যাগের আগ্রহ জানিয়েছেন বলে সূত্রে জানা গেছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির একজন কেন্দ্রীয় নেতা বলেন, সংসদ অবৈধ দাবি করে সংসদে থাকাটা যুক্তিযুক্ত নয়। এই বিষয়ে দ্রুত সিদ্ধান্ত আসা উচিত। দলের শীর্ষ নেতৃত্বও এটা নিয়ে ভাবছেন। সম্প্রতি স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এ ব্যাপারে আলোচনা হয়েছে।

বিএনপির সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা জানান, দল সিদ্ধান্ত দিলে তৎক্ষণাৎ তিনি দল সংসদ থেকে পদত্যাগ করবেন। অন্য সদস্যরাও পদত্যাগে প্রস্তুত বলে জানান তিনি।

বিএনপির সংসদ সদস্যরা পদত্যাগ করলে সংসদে তাদের আসনগুলো শূন্য হবে। সেক্ষেত্রে সেই আসনগুলোতে উপনির্বাচন হবে বলে ইতোমধ্যে জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

আরও পড়ুন: ‘বিএনপির এমপিদের পদত্যাগে অসুবিধা নেই, উপ-নির্বাচন হবে’

তবে বিএনপির অল্প কয়েকজন সংসদ সদস্য পদত্যাগ করলেও চলমান সংসদ কোনো সংকটে পড়বে না। কারণ আওয়ামী লীগের বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা রয়েছে। যদিও ৬ষ্ঠ জাতীয় সংসদে তৎকালীন বিরোধী দল আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্যদের পদত্যাগের পর বিএনপিকে সংসদ ভেঙে দিতে হয়েছিল।
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ঐক্যফ্রন্ট থেকে আটজন সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এর মধ্যে বিএনপির ছয়জন এবং গণফোরামের দুইজন। বিএনপির ছয়জনের মধ্যে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরও ছিলেন। তবে তিনি নির্ধারিত সময়ে শপথ না নেওয়ায় তার আসনে উপনির্বাচন হয় এবং সেখানে বিএনপির আরেক প্রার্থী জয়ী হন। এছাড়া সংরক্ষিত আসনে বিএনপি একটি সিট পায়। গণফোরামের দুইজন বাদে বিএনপির এখন সংসদে সাতটি সিট রয়েছে।

বিষয় :
প্রতিবেদক সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য

অনলাইন ডেস্ক

জনপ্রিয়

বিএনপির এমপিরা পদত্যাগ করবেন কবে?

প্রকাশিত: ০৯:২০:৩৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২২

বর্তমান সংসদে বিএনপির সাতজন সংসদ সদস্য রয়েছেন, তারা পদত্যাগ করবেন বলে জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি জানান, যেকোনো সময় তাদের পদত্যাগের ঘোষণা আসতে পারে।

শনিবার (২৯ অক্টোবর) বিকেলে রংপুরে বিভাগীয় সমাবেশে দেওয়া বক্তব্যে ফখরুল বলেন, ‘শেখ হাসিনার অধীনে কোনো নির্বাচন হবে না এবং নির্বাচন হতে হবে নির্দলীয় সরকারের অধীনে। ‍‍সরকারকে সংসদ থেকে অবশ্যই পদত্যাগ করতে হবে। আমাদের এমপিরা সংসদ থেকে পদত্যাগ করতে প্রস্তুত‍‍, এখন শুধু ঘোষণা বাকি।’

এর আগে গত ১১ অক্টোবর সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে বিএনপি মহাসচিব জানিয়েছিলেন, সরকারবিরোধী চলমান আন্দোলনে চূড়ান্ত রূপরেখা করতে যাচ্ছে বিএনপি। এই রূপরেখা চূড়ান্ত হলে বর্তমান একাদশ সংসদে দলের যে কয়জন সংসদ সদস্য আছেন তারা পদত্যাগ করতে পারেন।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, আগামী ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় মহাসমাবেশের আগে গুরুত্বপূর্ণ কিছু সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে বিএনপি। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো দলীয় সংসদ সদস্যদের জাতীয় সংসদ থেকে পদত্যাগ। ধারণা করা হচ্ছে, ১০ ডিসেম্বরের আগেই বিএনপির এমপিদের সংসদ থেকে পদত্যাগের ঘোষণা আসতে পারে।

বর্তমান সংসদে বিএনপির সাতজন এমপি আছেন। তারাও পদত্যাগে আগ্রহী বলে জানা গেছে। ইতোমধ্যে কয়েকজন এমপি দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের কাছে সংসদ থেকে পদত্যাগের আগ্রহ জানিয়েছেন বলে সূত্রে জানা গেছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির একজন কেন্দ্রীয় নেতা বলেন, সংসদ অবৈধ দাবি করে সংসদে থাকাটা যুক্তিযুক্ত নয়। এই বিষয়ে দ্রুত সিদ্ধান্ত আসা উচিত। দলের শীর্ষ নেতৃত্বও এটা নিয়ে ভাবছেন। সম্প্রতি স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এ ব্যাপারে আলোচনা হয়েছে।

বিএনপির সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা জানান, দল সিদ্ধান্ত দিলে তৎক্ষণাৎ তিনি দল সংসদ থেকে পদত্যাগ করবেন। অন্য সদস্যরাও পদত্যাগে প্রস্তুত বলে জানান তিনি।

বিএনপির সংসদ সদস্যরা পদত্যাগ করলে সংসদে তাদের আসনগুলো শূন্য হবে। সেক্ষেত্রে সেই আসনগুলোতে উপনির্বাচন হবে বলে ইতোমধ্যে জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

আরও পড়ুন: ‘বিএনপির এমপিদের পদত্যাগে অসুবিধা নেই, উপ-নির্বাচন হবে’

তবে বিএনপির অল্প কয়েকজন সংসদ সদস্য পদত্যাগ করলেও চলমান সংসদ কোনো সংকটে পড়বে না। কারণ আওয়ামী লীগের বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা রয়েছে। যদিও ৬ষ্ঠ জাতীয় সংসদে তৎকালীন বিরোধী দল আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্যদের পদত্যাগের পর বিএনপিকে সংসদ ভেঙে দিতে হয়েছিল।
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ঐক্যফ্রন্ট থেকে আটজন সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এর মধ্যে বিএনপির ছয়জন এবং গণফোরামের দুইজন। বিএনপির ছয়জনের মধ্যে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরও ছিলেন। তবে তিনি নির্ধারিত সময়ে শপথ না নেওয়ায় তার আসনে উপনির্বাচন হয় এবং সেখানে বিএনপির আরেক প্রার্থী জয়ী হন। এছাড়া সংরক্ষিত আসনে বিএনপি একটি সিট পায়। গণফোরামের দুইজন বাদে বিএনপির এখন সংসদে সাতটি সিট রয়েছে।